রোজা এবং নাক দিয়ে খাবারের সুঘ্রাণ: বিস্তারিত ব্যাখ্যা
রোজা এবং নাক দিয়ে খাবারের সুঘ্রাণ: বিস্তারিত ব্যাখ্যা
ধর্ম ও জীবন updated 3 months ago

রোজা এবং নাক দিয়ে খাবারের সুঘ্রাণ: বিস্তারিত ব্যাখ্যা

রোজা এবং নাক দিয়ে খাবারের সুঘ্রাণ: বিস্তারিত ব্যাখ্যা

 

অনেক রোজাদারের মনে প্রশ্ন জাগে যে নাক দিয়ে খাবারের সুঘ্রাণ পেলে রোজা ভেঙ্গে যায় কি না। উত্তর হলো না, নাক দিয়ে খাবারের সুঘ্রাণ পেলে রোজা ভাঙে না। রোজা ভাঙার জন্য খাবার বা পানীয় মুখ দিয়ে পেটে প্রবেশ করতে হবে।

কারণ:

রোজার নিয়ম অনুসারে, রোজাদারের মুখ দিয়ে ইচ্ছাকৃতভাবে কোন পদার্থ পেটে প্রবেশ করলে রোজা ভেঙ্গে যায়। নাক দিয়ে খাবারের সুঘ্রাণ পেলে তা মুখ দিয়ে গ্রহণ করা হয় না, বরং সুগন্ধি কণা নাকের ভেতরের শ্লেষ্মা পর্দায় ধারণ করে।

উদাহরণ:

রান্নাঘরে রান্না করার সময় খাবারের সুঘ্রাণ নাকে এলে রোজা ভাঙে না।

বাজারে ঘুরতে ঘুরতে খাবারের সুঘ্রাণ নাকে এলে রোজা ভাঙে না।

পারফিউম বা সুগন্ধি দ্রব্য ব্যবহার করলে রোজা ভাঙে না।

সতর্কতা:

নাক দিয়ে খাবার বা পানীয় টেনে নেওয়া যাবে না। এতে রোজা ভেঙ্গে যাবে।

সুগন্ধি দ্রব্য ব্যবহারে সতর্কতা অবলম্বন করুন। তীব্র সুগন্ধ নাক দিয়ে টেনে নেওয়ার সম্ভাবনা থাকলে তা ব্যবহার করা উচিত নয়।

উপসংহার:

নাক দিয়ে সুঘ্রাণ রোজা ভাঙে না, তবে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। রোজাদারদের মনে রাখা উচিত যে, রোজার উদ্দেশ্য শুধুমাত্র পেট ভরাট রাখা নয়, বরং মন, কথা ও কর্মের দিক থেকেও নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখা।

 

0
0
0
0
0
0
0
0
0
0 Comments

Follow Us on Facebook